বাংলাদেশ টাইম

প্রচ্ছদ» »মার্চের পর এই সরকার আর নাই: গয়েশ্বর চন্দ্র
মার্চের পর এই সরকার আর নাই: গয়েশ্বর চন্দ্র

Tuesday, 18 November, 2014 02:58  
A-
A+
মার্চের পর এই সরকার আর নাই: গয়েশ্বর চন্দ্র
আগামী ফেব্রুয়ারি-মার্চের পর এই সরকার টিকবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, ‘আজকে দেশের সর্বত্র জনগণের মাঝে একটাই জল্পনা কাজ করছে যে আগামী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি-মার্চের পর এই সরকার আর নাই।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫০তম জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী কর্মজীবী দল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

গয়েশ্বর রায় বলেন, ‘আ.লীগের নেতারা সবসময় বলে বিএনপির নাকি আন্দোলন করার ক্ষমতা নাই। তাহলে আমাদেরকে এতো ভয় করেন কেন? কারণ যে কোন মুহূর্তে আপনাদের কাচের ঘর ভেঙে যেতে পারে। জনগণ ফুঁসে উঠছে। আপনাদের আর বেশিদিন সময় নাই।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমানটা আপনাদের, আর ভবিষ্যতটা আমাদের। আজকে আপনারা আমাদের ওপর যে অত্যাচার-নির্যাতন চালাচ্ছেন ভবিষ্যতে আমরা যদি সেই পথ অবলম্বন করি। তাহলে আপনাদের পরিণতি কী হবে তা ভেবেই আপনারা ভীত হয়ে পড়ছেন।’

তারেক রহমান রাজনীতির শীর্ষে অবস্থান করছেন দাবি করে গয়েশ্বর বলেন, ‘তারেক রহমানের রাজনৈতিক জীবন সার্থক। তিনি রাজনীতির শীর্ষে অবস্থান করছেন। সবার দৃষ্টি এখন তারেক রহমানের দিকে। যারা পক্ষে আছেন তাদের, আবার যারা বিপক্ষে আছেন তাদেরও।’

তারেক রহমানের সঙ্গে জয়ের তুলনা চলে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘তারেক রহমানের সঙ্গে যার তুলনা করার চেষ্টা করা হয়। সেটা অবান্তর। রাজনীতিতে জয়ের কোনো অবস্থান খুঁজে পাওয়া যাবে না। যতটুকু পাওয়া যায় সেটা তার মায়ের ক্ষমতাবলে। তিনি সারাবছর থাকেন শ্বশুর বাড়িতে। মাঝে মাঝে বেড়াতে আসেন বাপের বাড়িতে। তারেক রহমানের তুলনায় রাজনীতিতে সে আজকের নয়, আগামীদিনের শিশু।’

এসময় তারেক রহমানকে ভাইয়া না বলে নেতা বলার জন্য সবাইকে অনুরোধ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাদের কার বেতন কত তা জানতে চেয়ে গয়েশ্বর বলেন, ‘শুনেছি এইচটি ইমামের বেতন নাকি দুই হাজার ডলার। তথ্য উপদেষ্টার বেতনও অনেক বেশি। তাহলে এখন প্রশ্ন, প্রধানমন্ত্রীর বেতন কত? আর প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বেতন কতো? এটা সবার জানা দরকার।’

ভবিষ্যতে তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলা হতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সাংবাদিকদের সমালোচনা করে গয়েশ্বর বলেন, ‘সাংবাদিকরা বিএনপি আমলে যে পরিমাণ মিথ্যা প্রচারণা চালিয়েছে, তা বলার মতো না। অথচ আজকে দেশে সর্বত্র দুর্নীতি, গুম-খুন হচ্ছে কিন্তু সাংবাদিকরা এসব লেখেন না।’

‘নাকি লিখতে পারেন না’ এরকম মন্তব্যও করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘তারেক রহমানের মতো এতো কম বয়সে বাংলাদেশের কোনো রাজনীতিবিদ এতো বেশি আলোচনায় আসেনি। ১/১১তে বন্দি জীবনে তার ওপর যে নির্যাতন করা হয়েছে এর আগে কারো ওপর এমনটি করা হয়েছিল কিনা তা আমার জানা নেই।’

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কর্মজীবী দলের সভাপতি হাজী মোহাম্মদ লিটনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির প্রচার সম্পাদক জয়নাল আবেদিন ফারুক, স্বাধীনতা ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমতুল্লাহ, জাতীয়তাবাদী কর্মজীবী দলের সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন সরদার প্রমুখ।

এই ধরনের আরও পোস্ট -
   

আরও খবর

TOP