বাংলাদেশ টাইম

প্রচ্ছদ» দেশের খবর »রামপালে জমে উঠেছে ইদের বাজার ঃ বৃষ্টিতে ক্ষতির আশংকা ব্যাবসায়ীদের
রামপালে জমে উঠেছে ইদের বাজার ঃ বৃষ্টিতে ক্ষতির আশংকা ব্যাবসায়ীদের

Wednesday, 13 June, 2018 08:03pm  
A-
A+
রামপালে জমে উঠেছে ইদের বাজার ঃ বৃষ্টিতে ক্ষতির আশংকা ব্যাবসায়ীদের
অমিত পাল ,রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি রামপালে আসন্ন ইদুল ফিতর কে সামনে রেখে বাজারগুলোতে কেনাকাটার ধুম পড়েছে। তবে গত ২ দিনের প্রবল বৃষ্টির কারনে ক্রেতারা মার্কেটগুলোতে ভিড়তে পারছেন না এমনটাই অভিযোগ ব্যাবসায়ীদের।
সরেজমিনে দেখা গেছে,রামপালের গুরুত্বপূর্ন বাজারের মধ্যে ফয়লাহাট,গিলাতলা এবং  কাছাকাছি দিগরাজ বাজার অন্যতম। এর মধ্যে শুধুমাত্র কাপড় এবং কসমেটিকস দোকানগুলো ফয়লাহাটেই বেশী। সেই সুবাদে বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ইদের বাজারের জন্য ক্রেতারা ফয়লাহাটই সেরা মনে করেন। তাই প্রতি বছর এই সময়ে ক্রেতাদের ভিড়ে বাজার থাকে জমজমাট। নি¤œ আয়ের মানুষের জন্য বাহারী পোষাক ,মনোহরী সামগ্রী  নিয়ে ফুটপাতে বসে কিছু দোকান। তবে গত শনিবার থেকে টানা বর্ষনের কারনে ক্রেতাদের সন্তোষজনক উপস্থিতি পাচ্ছেন না ব্যাবসায়ীরা। বৃষ্টির কারনে ফুটপাতের ব্যাবসায়ীরা পোহাচ্ছেন চরম দূর্ভোগ। তবে এবছর দোকান সংলগ্ন এলাকায় রাস্তা প্রশস্ত করার ফলে পথচারীদের চলাচলে বেশ সুবিধা লক্ষ করা গেছে। এ বছর বাচ্চাদের পোষাকের পাশাপাশি মেয়েদের থ্রি পিচ, লেহেঙ্গার চাহিদা বেশী হলেও পাশাপাশি শাড়ী ও লুঙ্গি জুতা এবং কসমেটিকসও বিক্রয় হচ্ছে। ফয়লাহাট বাজারের সবথেকে বড় কসমেটিকস এবং মনোহরী সামগ্রী বিক্রেতা গোল্ডেন টাচ কসমেটিকস এর মালিক আনোয়ার হোসেন জানান, ১৫ রমজানের পর থেকে ক্রেতাদের ব্যাপক সমাগম ছিলো। তবে এই ২ দিনের টানা বর্ষনের কারনে বাজারে লোকসমাগম কম। তবে চাদ রাত পর্যন্ত আবহাওয়ার উন্নতি হলে বেচাকেনা বাড়বে বলে তিনি মনে করেন। বিসমিল্লাহ মার্কেট এর পোষাক ব্যাবসায়ী মোঃ রাসেল শেখ জানান, প্রতিদিন মোটামুটি বেশ ক্রেতা আসছে। আমরা একদম কম বাজেটে সকলের জন্য ইদের পোষাক দিচ্ছি । আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে ব্যাপক কেনাবেচা হবে বলে তিনি মনে করেন। নীল ফ্যাশন এর মালিক বিশিষ্ট পোষাক ব্যাবসায়ী মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান বুলু বলেন, ছেলেদের শার্ট প্যান্ট এর পাশাপাশি বাচ্চাদের ড্রেস এর চাহিদা এবার বেশী। তবে লেডিস আইটেমের দাম চড়া হওয়ায় বিক্রয়ের হার কম বলে জানান। কয়েকজন ক্রেতা জানান, এখানকার মার্কেটগুলোতে পন্যগুলোর রকমারী রয়েছে। তবে দু একটি দোকানে দাম একটু চড়া বলে কেউ কেউ অভিযোগ করেন। বাজারের শেষ প্রান্তে পুরাতন খেয়াঘাট এলাকায় বৃষ্টির জল রাস্তার উপর আটকে থাকার কারনে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে লোকজন চলাচলে দূর্ভোগ পোহাচ্ছে বলেও বেশ কয়েকজন পথচারী জানান। ফয়লাহাট পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন , কোনো ধরনের অপ্রীতীকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সর্বদা সতর্ক আছে।


এই ধরনের আরও পোস্ট -
   

আরও খবর

TOP