বাংলাদেশ টাইম

প্রচ্ছদ» অপরাধ »মুসলিম শিশুকে মন্দিরে দলবেঁধে ধর্ষণের পর হত্যা: বিক্ষোভে উত্তাল ভারত
মুসলিম শিশুকে মন্দিরে দলবেঁধে ধর্ষণের পর হত্যা: বিক্ষোভে উত্তাল ভারত

Saturday, 14 April, 2018 12:42am  
A-
A+
মুসলিম শিশুকে মন্দিরে দলবেঁধে ধর্ষণের পর হত্যা: বিক্ষোভে উত্তাল ভারত
বাংলাদেশ টাইম : জম্মু ও কাশ্মিরে আট বছরের এক মুসলিম শিশুকে মন্দিরে দলবেঁধে ধর্ষণের পর  হত্যার ঘটনায় আবারও ভারত জুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। বিবিসি জানায়, গত ১০ জানুয়ারি কাশ্মিরের কাঠুয়া শহরের কাছে মুসলিম যাযাবর সম্প্রদায়ের আসিফা বানু নিখোঁজ হয়। ৭ দিন পর কাছের একটি জঙ্গলে তার মৃতদেহ খুঁজে পাওয়া যায়। ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ ১৯ বছরের এক তরুণকে গ্রেপ্তার করে। তরুণের জবানবন্দির ভিত্তিতে তার চাচা মন্দিরের (যে মন্দিরে আসিফাকে আটকে রেখে ধর্ষণ ও হত্যা করা হয়) পরিচালক সাবেক সরকারি কর্মকর্তা সানজি রাম এবং পুলিশ কর্মকর্তা দীপক খাজুরিয়াকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্র্রেপ্তার চতুর্থ ব্যক্তি স্পেশাল পুলিশ অফিসার সুরিন্দর কুমার। তাকে প্রত্যক্ষদর্শীরা ঘটনাস্থলে দেখছিল। ওই তরুণের বন্ধু প্রবেশ কুমারও শিশুটিকে ধর্ষণ করেছে। তাকে খুঁজছে পুলিশ। পুলিশি তদন্ত এবং ঘটনাস্থল থেকে সংগ্রহকরা নমূনার রাসায়নিক পরীক্ষায় অভিযুক্তদের ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার প্রমান পাওয়া যায় বলে জানায় এনডিটিভি। তিন মাস আগের এ ঘটনা নিয়ে এ সপ্তাহে ভারত জুড়ে আবারও আলোচনা শুরু হয়। কারণ, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হিন্দু হওয়ায় হিন্দু অধ্যুষিত জম্মুর কয়েকটি হিন্দু রাইট-উইং গ্রুপ তাদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করে। বিবিসি জানায়, জম্মুর হিন্দু আইনজীবীদের একটি দল পুলিশকে আদালতে আসিফা হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দাখিলে বাধা দেয়। অভিযুক্তদের নির্দোষ প্রমাণ করতে পুলিশকে মোটা অংকে ঘুষের প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল, অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে জানায় এনডিটিভি। এমনকি প্রমাণ লোপাট করতে পুলিশের উপ-পরিদর্শক আনন্দ দত্ত এবং প্রধান কন্সটেবল তিলক রাজ গুরত্বপূর্ণ প্রমাণ সংগ্রহ করেনি এবং আসিফার পোশাক ধুয়ে ফেলেন বলেও অভিযোগপত্রে বলা হয়। ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির দুই মন্ত্রী অভিযুক্তদের মুক্তির দাবিতে করা মিছিলে অংশ নেন বলেও জানায় এনডিটিভি। শুধুমাত্র ধর্মের কারণে এরকম নৃশংস একটি ঘটনার পরও অভিযুক্তদের মুক্তি দাবি এবং ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রীদের তা সমর্থন করায় পুরো ভারত ক্ষোভে ফেটে পড়ে। বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে #Kathua and #justiceforAsifa হ্যাশট্যাগ ছড়িয়ে পড়ে।
আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার মন্দিরের পরিচালক ও সাবেক সরকারি কর্মকর্তা সানজি রাম। ছবি: এনডিটিভি
 
বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানী দিল্লিতে আসিফা হত্যা মামলায় ন্যায় বিচারের দাবিতে ইন্ডিয়া গেট অভিমুখে ‘ক্যান্ডেললাইট মার্চের’ নেতৃত্ব দেন ভারতের প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেস পার্টির প্রধান রাহুল গান্ধী। রাহুল বলেন, “আমরা কি দেখছি, এদেশে নারী ও শিশুরা ক্রমাগত ধর্ষণ ও হত্যার শিকার হচ্ছে। আমরা সরকারের কাছে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। এটা কোনো রাজনৈতিক বিষয় নয়, এটা জাতীয় বিষয়।” সোনিয়া গান্ধী এবং প্রিয়াংকা ভদ্র গান্ধীও ওই প্রতিবাদ মিছিলে যোগ দেন।

নারী ও শিশুদের অধিক সুরক্ষার দাবিতে দিল্লি কমিশন ফর উইম্যান এর প্রধান শুক্রবার থেকে আমরণ অনশনে বসার ঘোষণা দিয়েছেন।
 
কি ঘটেছিল আসিফার সঙ্গে:

গ্রেপ্তার তরুণের জবানবন্দিতে ভয়ঙ্কর নৃশংসতার কথা উঠে আসে। ওই তরুণ একটি ঘোড়া খুঁজে দিতে সাহায্য করার কথা বলে আসিফাকে জঙ্গলে ডেকে নিয়ে যায়। পরে সে আফিসাকে জোর করে গ্রামের একটি ছোট্ট মন্দিরে টেনে নিয়ে যায় এবং নেশাদ্রব্য খাইয়ে দেয়। ওই তরুণ, মন্দিরের পরিচালক সানজি রাম ও পুলিশ কর্মকর্তা দীপক খাজুরিয়া শিশুটিকে তিন দিন ধরে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। ওই তিনদিন শিশুটিকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে রাখ হয়েছিল এবং কিছু খেতে দেওয়া হয়নি। পরে তারা ভারি পাথর দিয়ে মাথায় আঘাত করে আসিফাকে হত্যা করে তার লাশ জঙ্গলে ফেলে দেয়।

এই ধরনের আরও পোস্ট -
   

আরও খবর

TOP