বাংলাদেশ টাইম

প্রচ্ছদ» শিল্প-সাহিত্য »কাজী হায়দার স্বর্ণপদক পাচ্ছেন ছড়াকার আহাদ আলী মোল্লা
কাজী হায়দার স্বর্ণপদক পাচ্ছেন ছড়াকার আহাদ আলী মোল্লা

Wednesday, 31 August, 2016 12:17pm  
A-
A+
কাজী হায়দার স্বর্ণপদক পাচ্ছেন ছড়াকার আহাদ আলী মোল্লা
নিজস্ব সংবাদদাতা : জীবননগরের প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা কাজী হায়দার স্বর্ণপদক প্রবর্তন করা হয়েছে। প্রথমবারের মতো এ পদক পাওয়ার জন্য মনোনীত হয়েছেন চুয়াডাঙ্গার শক্তিমান ছড়াকার সৃজনী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক আহাদ আলী মোল্লা। ছড়া সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ১০ হাজার টাকার নগদ অর্থ পুরস্কারসহ আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর তাকে এ পদকে ভূষিত করা হবে। দু’বছর পর পর শিক্ষা-সংস্কৃতি, শিল্প-সাহিত্য, চিকিৎসা বিজ্ঞান ও সমাজসেবায় অসামান্য অবদানের জন্য জেলার একজন কৃতিসন্তানকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থ পুরস্কারসহ এ পদক প্রদান করা হবে। যার ব্যয়ভার বহন করবে জীবননগরের কাজী হায়দারের পরিবার।

শ্রমিক থেকে শিল্পপতি, শিক্ষানবিস থেকে প্রাজ্ঞ পন্ডিত, রাজনীতিক, আমলা, ব্যবসায়ী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত কর্তৃপক্ষ, প্রশাসনিক কর্মকর্তাসহ এই জনপদের তাবত মানুষকে প্রাতঃকালীন চায়ের সাথে নাড়া দিয়ে যায় দৈনিক মাথাভাঙ্গায় প্রকাশিত একটি বিষয়ভিত্তিক জীবনঘনিষ্ঠ ছড়া ‘টিপ্পনী’। প্রতিটি প্রত্যুষে যার লেখা টিপ্পনী না পড়লে আমাদের দিনটাই কেমন যেন অসম্পূর্ণ মনে হয়; তিনি খ্যাতিমান ছড়াকার চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রকাশিত দৈনিক মাথাভাঙ্গার বার্তা সম্পাদক আহাদ আলী মোল্লা। প্রতিদিন শাণিত ছড়ার মাধ্যমে তিনি সমাজের সকল অনাচার, অবিচার, বঞ্চনা, অসঙ্গতি ও কুসংস্কারের ভিত্তিমূলে আঘাত করে চলেছেন। ছড়া সংগ্রামের মাধ্যমে মানুষের সুপ্ত বিবেক জাগ্রত করার মহান দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছেন ছড়া শিল্পী আহাদ আলী মোল্লা। তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে লিখে চলেছেন তিনি। ১৯৯১ সালে দৈনিক মাথাভাঙ্গার জন্মলগ্ন থেকে ২৬ বছর ধরে টিপ্পনী লিখছেন তিনি। মৌলিক লেখাসহ তার ছড়া/কবিতার সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। 

আহাদ আলী মোল্লা চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার জেহালা ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের মকবুল মোল্লা ও সাকিমা বেগমের বড় ছেলে। তিনি একই উপজেলার সৃজনী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক।

রাস্তার মোড়, চায়ের দোকান, হোটেল-মোটেল, রেঁস্তোরায়, স্টেশনে, অফিসে, বাস স্টপেজে, মাঠে-ঘাটে, গৃহকোণে সব শ্রেণী-পেশার মানুষকে দিয়ে প্রত্যহ তিনি ছড়া পাঠ করিয়ে চলেছেন রাজাধিরাজের মতো। মূলত তিনিই চুয়াডাঙ্গায় ছড়ার জাগরণ সৃষ্টি করেছেন। ছড়া সাহিত্যকে আমজনতার মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য চুয়াডাঙ্গার কিংবদন্তী এই ছড়াকার প্রথমবারের মতো প্রবর্তিত কাজী হায়দার স্বর্ণপদক ২০১৬’র জন্য মনোনীত হয়েছেন। প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. কাজী গোলাম মোস্তফা হায়দারের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকীর স্মরণসভায় আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর চুয়াডাঙ্গা জেলা লেখক সংঘের ব্যবস্থাপনায় আনুষ্ঠানিকভাবে স্বর্ণপদকে ভূষিত করা হবে আহাদ আলী মোল্লাকে। এই পদকের সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকার অর্থ পুরস্কারও প্রদান করা হবে। গত ৫ আগস্ট চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে আয়োজিত লেখক সংঘের নবগঠিত কার্যকরী কমিটি ২০১৬-২০১৮ ঘোষণার প্রাক্কালে মুহুর্মুহু করতালির মধ্যদিয়ে প্রয়াত কাজী হায়দারের সহধর্মিণী জেলা লেখক সংঘের সভাপতি ডা. শাহীনূর হায়দার প্রথমবারের মতো কাজী হায়দার স্বর্ণপদক প্রবর্তনের ঘোষণা দেন। পরে পদক প্রদান কমিটি আলোচনা শেষে সর্বসম্মতভাবে জেলার কৃতিসন্তান বিরল প্রতিভাধর ছড়াকার আহাদ আলী মোল্লাকে প্রথম কাজী হায়দার স্বর্ণপদকের জন্য মনোনীত করা হয় বলে কমিটির সভাপতি ডা. শাহীনূর হায়দার এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন।

আলোর দিশারী দানবীর জীবননগরের প্রয়াত কাজী গোলাম মোস্তফা হায়দার ছিলেন একাধারে কবি, সংগঠক, প্রাবন্ধিক, গল্পকার, কলামিস্ট, সাংবাদিক, সমাজসেবী, রাজনীতিক ও আইনজীবী। জীবনের অন্তিম লগ্নে তিনি তৃণমূল পর্যায়ের অবহেলিত কবি-সাহিত্যিকদের পরিচর্যার মাধ্যমে জাতীয়ভাবে উন্নীতকরণের লক্ষ্যে জেলার বৃহত্তম সাহিত্য সংগঠন চুয়াডাঙ্গা জেলা লেখক সংঘ প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি ছিলেন জীবননগর সাহিত্য পরিষদেরও প্রতিষ্ঠাতা।


এই ধরনের আরও পোস্ট -
   

আরও খবর

TOP